• সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ১১:০৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম
সাংবাদিক মানিকের ছেলের দাফন সম্পন্ন সাংবাদিক আব্দুর রহমান মানিক এর সেজ ছেলের ইন্তেকাল (ইন্না-লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহে রাজিউন) গোমস্তাপুরে অধ্যক্ষের অফিস ভাংচুর ইউপি চেয়াম্যানসহ আহত-৪ রাজশাহী কারাগারে নারী হত্যাকারী মৃত্যুদন্ড প্রাপ্ত আসামির ফাঁসি কার্যকর চাঁপাইনবাবগঞ্জ বিপুল পরিমাণ মাদক ধ্বংস নাচোলের সিনিয়র সাংবাদিক সাজিদ তোহিদের পিতার ইন্তেকাল করেছেন। চাঁদপুরে ফুটবল বিতর্কে বন্ধুর ছুরিকাঘাতে বন্ধু খুন নাচোলে প্রতারক বাবলু গ্রেপ্তার চাঁপাইনবাবগঞ্জে স্ত্রী হত্যার দায়ে ৩ বছর পর স্বামীর মৃত্যুদণ্ড বিএনপি’র বিভাগীয় সমাবেশ সফল করতে তাহেরপুরে লিফলেট বিতরণ

দেশের ২৪ জেলায় নেই শিক্ষা কর্মকর্তা

Reporter Name / ১৭৪ Time View
Update : শনিবার, ২১ নভেম্বর, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টাস :: বরিশাল অঞ্চলের ঝালকাঠি, পিরোজপুর, ভোলাসহ দেশের ৬৪ জেলার ২৪টিতেই কোন শিক্ষা কর্মকর্তা নেই। এর ফলে ওইসব জেলাগুলোতে শিক্ষা কার্যক্রম চলছে খুড়িয়ে খুড়িয়ে। এমনকি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর জেলা কিশোরগঞ্জ ও গোপালগঞ্জেও নেই শিক্ষা কর্মকর্তা। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ (মাউশি) বলছে উপযুক্ত কোনো কর্মকর্তা না থাকায় জেলার শীর্ষ পদ এখনো ফাঁকা রয়েছে।
জানা গেছে, নিচের পদের কর্মকর্তাকে ভারপ্রাপ্ত হিসেবে দায়িত্ব দিয়ে এসব জেলায় কোনো রকমে চালিয়ে নেওয়া হচ্ছে জেলা শিক্ষা অফিসগুলোর কার্যক্রম। কোথাও আবার নিচের কর্মকর্তা পদটিও শূন্য থাকায় এ দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে জেলা সদরের সরকারি হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষককে। বছরের পর বছর ধরে চলছে এমন অবস্থা।

যেসব জেলায় শিক্ষা কর্মকর্তা নেই সেগুলো হলো- গোপালগঞ্জ, ফরিদপুর, মাদারীপুর, শরীয়তপুর, রাজবাড়ী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, লক্ষ্মীপুর, সিলেট, হবিগঞ্জ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নওগাঁ, বগুড়া, ঝালকাঠি, পিরোজপুর, চট্টগ্রাম, ভোলা, কিশোরগঞ্জ, জামালপুর, নেত্রকোনা, শেরপুর, কক্সবাজার, খাগড়াছড়ি, নোয়াখালী ও বান্দরবান।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মাউশির পরিচালক (মাধ্যমিক) অধ্যাপক বেলাল হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ‘এ মুহূর্তে ডিইও পদে পদোন্নতিযোগ্য কোনো কর্মকর্তা নেই। তাই কাউকে পদোন্নতি দিয়ে এ পদে পদায়ন করা যাচ্ছে না।’

নিয়োগবিধি অনুসারে দু’ভাবে ডিইও পদে নিয়োগ দেওয়া হয়। পাবলিক সার্ভিস কমিশনের (পিএসসি) পরীক্ষার মাধ্যমে সরাসরি ২০ শতাংশ এবং সহকারী শিক্ষা অফিসারদের (এডিইও) মধ্য থেকে ৮০ শতাংশ পদোন্নতির মাধ্যমে এ পদ পূরণ করা হয়। পিএসসির মাধ্যমে ২০ শতাংশ পদ বর্তমানে পূরণ করা আছে। তবে ফিডার সার্ভিস পূরণ না হওয়ায় পদোন্নতির মাধ্যমে বাকি ৮০ শতাংশ পদ পূরণ করা যাচ্ছে না। বর্তমানে যারা এডিইও পদে কর্মরত আছেন, তারা এ পদে ২০১৮ সালে পদোন্নতি পেয়েছেন। ডিইও হওয়ার জন্য তাদের চার বছরের ফিডার সার্ভিস পূর্ণ হবে ২০২১ সালে।

অনেক জেলায় আবার মূল দায়িত্বের পাশাপাশি অতিরিক্ত আরও অনেক দায়িত্ব পালন করতে হচ্ছে ডিইওদের। বহু স্থানে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের (ইউসিইও) পদ শূন্য থাকায় ডিইওরা এসব পদে দায়িত্ব পালন করছেন।

আঞ্চলিক উপপরিচালকের অধীনে সে অঞ্চলের বেসরকারি স্কুল শিক্ষক-কর্মচারীদের এমপিওভুক্তির কাজ করা হয়। এমপিওভুক্তির কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করে সেগুলো আঞ্চলিক অফিসে পাঠান ডিইও। এসব পদে দীর্ঘদিন ধরে ভারপ্রাপ্ত কেউ না থাকায় শিক্ষক-কর্মচারীদের ভোগান্তি আরও বেড়েছে।

মাউশির ৯টি অঞ্চলের আঞ্চলিক উপপরিচালকের মধ্যে তিনটি পদই বর্তমানে শূন্য। চট্টগ্রামের আঞ্চলিক উপপরিচালক ও জেলা শিক্ষা অফিসারের দুটি পদই শূন্য থাকায় এ দুটি পদে অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছেন চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুলের প্রধান শিক্ষক দেবব্রত দাস। সব মিলিয়ে এখন তাকে তিনটি পদের দায়িত্ব পালন করতে হচ্ছে। বরিশালের জেলা শিক্ষা অফিসার আনোয়ার হোসেন অতিরিক্ত হিসেবে মাউশির বরিশাল অঞ্চলের আঞ্চলিক উপ-পরিচালকের দায়িত্বেও রয়েছেন। কুমিল্লায় আঞ্চলিক উপ-পরিচালকের অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছেন কুমিল্লা সরকারি নবাব ফয়জুন্নেসা সরকারি গার্লস হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা রোকসানা ফেরদৌস।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category




error: Content is protected !!
error: Content is protected !!