ধান কুড়িয়ে শীতের পোশাক

প্রকাশিত: ৪:৪৮ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৯, ২০২০

কুড়িগ্রাম এর ভূরুঙ্গামারী উপজেলার বিস্তীর্ণ ফসলের মাঠে ঝরে পড়া ও ইঁদুরের গর্ত থেকে ধান সংগ্রহের আনন্দে মেতেছে হতদরিদ্র শিশুরা। সংগ্রহ করা ধান বিক্রি করেই তারা কিনবে শীতের পোশাক।

প্রতিবছর ধান কাটা শেষ হতেই ঝরে পড়া ধান কুড়াতে ব্যস্ত সময় পার করে একদল শিশু-কিশোর। সংগ্রহ করা ধান বিক্রি করেই তারা শার্ট, প্যান্ট, জুতা কিংবা শীতের পোশাক কিনবে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, বিস্তীর্ণ ফসলের মাঠ থেকে কৃষকরা ধান নিয়ে যাওয়ার পর একদল শিশু-কিশোর হাতে খুন্তি-কোদাল, চালন, ডালা, ব্যাগ নিয়ে খুঁজে ফিরছে ইঁদুরের গর্ত। ইঁদুরের গর্তে জমানো ধান ব্যাগে ভরে তারা। এছাড়া জমিতে পড়ে থাকা ধানও কুড়িয়ে ব্যাগে ভরতে দেখা গেল।

জানা গেছে, চলতি মৌসুমে ধান কাটা ও মাড়াই চলছে। এবার ধানের দাম বেশি পাওয়ায় কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে। এক মণ ধান বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার থেকে ১১শ টাকায়।

শিশুদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেল, মাঠের ধান কৃষকরা কেটে নিয়ে যাওয়ার পর মাটিতে ধানের শীষ পড়ে থাকে। সেগুলো চেলে নেয়া হয়। এছাড়া ইঁদুরের গর্ত খুঁড়লে পাওয়া যায় ধান। প্রতি বছরই ধান সংগ্রহে আনন্দে মেতে ওঠে তারা। ধান বিক্রির টাকা দিয়েই শীতের জ্যাকেট ও জুতা কিনে থাকে।

মাঠে ধান সংগ্রহ করতে আসা শিশু আনিছুর রহমান (১০) জানায়, আমরা বিভিন্ন মাঠে ধান সংগ্রহ করে তা বিক্রি করি। সেই টাকা দিয়ে শীতের জ্যাকেট কিনব।

উপজেলার মইদাম এলাকার কৃষক আফছার আলি জানান, ধান কাটার পর মাটিতে পড়ে থাকা ধান শিশু-কিশোররা সংগ্রহ করে, এতে আমরা বাধা দেই না। এছাড়া গ্রামের হতদরিদ্র পরিবারের শিশুরাই দল বেঁধে ধান সংগ্রহ করে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আআসাদুজ্জামান জানান, খেতে এভাবে ইঁদুরের গর্ত থেকে ধান সংগ্রহ করা নিরাপদ নয়। তবে আধুনিক পদ্ধতিতে কৃষকরা খেতে ধান কাটা ও মাড়াই করলে ধান মাটিতে পড়া এবং ইঁদুর নষ্ট করতে পারবে না। এতে কৃষকরাও উপকৃত হবেন।