• রবিবার, ২৯ মে ২০২২, ০৫:২২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
গোমস্তাপুরে র‍্যাব-৫ কর্তৃক ২ কেজি গাঁজাসহ আটক-২ সাপাহারে ভটভটি উল্টে নিহত-১ গোমস্তাপুরে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ৪০টির অধিক ঘরে ওঠেনি উপকার ভোগীরা মাধবকুণ্ড ইকোপার্কে পর্যটক হয়রানি ও চাঁদাবাজি বন্ধে কঠোর উপজেলা প্রশাসন গোদাগাড়ীতে পুরুষ সেজে চাচিকে ভাগিয়ে বিয়ে করলেন তরুণী অপহরণের ১৪ দিন পর কিশোরীকে উদ্বার করল র‍্যাব-৫ কানসাট ইউপি নির্বাচনে আজ প্রতীক বরাদ্দ, দুজনের মনোনয়ন প্রত্যাহার নাচোল সমাজসেবা অফিসের কর্মী শামীমের লাশ দাফন সম্পন্ন মডেল প্রেসক্লাব পাবনা’র পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হল উপজেলা চেয়ারম্যান, পৌর মেয়র, জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারকে চাঁপাইনবাবগঞ্জে বিএনপির আহবায়ক কমিটি থেকে তৃর্ণমূলের ৬১ জন নেতাকর্মীর পদত্যাগ

বদলগাছীতে ফুল কপির বাম্পার ফলন দাম না থাকায় হতাশ কৃষক ফুলকপি ক্ষেতে হতাশ দাঁড়িয়ে কৃষক

Reporter Name / ৫৮ Time View
Update : শুক্রবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০২০

হারুনুর রশিদ (হারুন) বদলগাছী নওগাঁ প্রতিনিধিঃ-
নওগাঁর বদলগাছী উপজেলায় কোলা ইউনিয়নে শীতকালীন সবজি ফুলকপির বাম্পার ফলন হয়েছে। তবুও নেই কৃষকের মুখে হাসি। গত মৌসুমের চেয়ে এ মৌসুমে ফুলকপির ফলন অনেক বেশি হয়েছে।

এ বছর বদলগাছী উপজেলায় কোলা ইউনিয়নে প্রায় ৮৫ হেক্টর জমিতে ফুলকপির আবাদ হয়েছে। যা গতবছরের চেয়ে কম। অন্য বছরের তুলনায় এ বছর ফুলকপির ফলন আশা অনুরূপ অনেক বেশিই হয়েছে। ফুলকপির বাম্পার ফলন হওয়ার পরও নেই কৃষকের মুখে হাসি।

ফলন বেশি হওয়ার পরেও লোকসান গুণতে হচ্ছে অধিকাংশ কৃষককে। যার ফলে হতাশায় ভোগছেন বদলগাছী উপজেলার কোলা ইউপির ফুলকপি চাষিরা।

হতাশার কারন জানতে চাইলে, উপজেলার কোলা ইউনিয়নের খামার আক্কেল পুর গ্রামের কৃষক উজ্জ্বল হোসেন বলেন এ মৌসুমে ফুল কপির ফলন অন্য বছরের চেয়ে অনেক বেশি হয়েছে। কিন্তু ফলন ভালো হলেও সঠিক মূল্য পাওয়া যাচ্ছে না। প্রতিটি ফুলকপি ফলানোর জন্য প্রায় দশ টাকা খরচ হচ্ছে।কিন্তু কপি স্থানীয় বাজারে বিক্রি করতে গেলে দাম পাওয়া যাচ্ছে মাত্র পাঁচ টাকা। এজন্য ফলন বেশি হওয়ার পরেও নেই কৃষকের মুখে আনন্দের হাসি।

একই গ্রামের কৃষক মো. দুলাল হোসেন বলেন, ৩৩ শতাংশ জমিতে ফুলকপি চাষ করতে তার খরচ হয়েছে ১৬/১৭ হাজার টাকা, আর কপি বিক্রি করে মাত্র ১২/১৪ হাজার টাকা হাতে পেয়েছে, এ বছর ফুলকপি চাষ করে তার প্রায় ৫/৬ হাজার টাকা ক্ষতি হয়েছে।

এ ব্যাপারে কোলা ইউনিয়নের উপসহকারী কৃষি অফিসার মোঃআলমগীর জানান উপজেলার কোলা ইউনিয়নে প্রায় ৮৫ হেক্টর জমিতে ফুলকপির আবাদ হয়েছে। যা গতবছরের চেয়ে কম। অন্য বছরের তুলনায় এ বছর ফুলকপির ফলন আশা অনুরুপ অনেক বেশিই হয়েছে। ফুলকপির ফলন ভালো হওয়ার পরেও স্থানীয় বাজারে
কপির দাম না থাকায় হতাশায় পড়েছে এই অঞ্চলের কৃষকেরা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category