• মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৩৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম
জাতিসংঘ সদর দপ্তরের উত্তরের লনের বাগানে বৃক্ষরোপণ ও বেঞ্চ উৎসর্গ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শিবগঞ্জে ক্যান্সার-কিডনি ও লিভার সিরোসিস রোগীদের মাঝে চেক বিতরণ সুমি ও রুমির নতুন ঠিকানা শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্র সাপাহারে বরেন্দ্র বাতিঘর পাঠাগারের শুভ উদ্বোধন চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলাতে কবির নানাচুর নামক কারখানাতে ৩০০০০ হাজার টাকা জরিমানা খুলনার দাকোপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতিকের ৬ জন ও দুজন সতন্ত্র প্রার্থী বিজয়ী গলাচিপায় প্রতিবন্ধীদের সাথে যুবলীগ নেতার মতবিনিময় চাকরি ছেড়ে ফল বাগান, ভাগ্যবদল তুষারের চাঁপাইনবাবগঞ্জে চাচাতো ভাইয়ের ধাক্কায় প্রাণ গেল ডিস ব্যবসায়ীর পটুয়াখালীতে ভোক্তা অধিকারের অভিযান : জরিমানা ১২ হাজার টাকা



মুসলিম বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ দেশ তুরস্ক

Habibulla Sipon / ১১১ Time View
Update : শনিবার, ২১ আগস্ট, ২০২১



সেতারা কবির সেতু:

তুরস্ক বিশ্ব মুসলমানদের ইতিহাসে অত্যন্ত পরিচিত, সমৃদ্ধ এবং গুরুত্বপূর্ণ একটি জনপদের নাম। ঐতিহ্যবাহী ওসমানীয় সাম্রাজ্যের পতনের পর শক্তিশালী দেশ ও জাতি হিসেবে গড়ে উঠতে পশ্চিম সীমান্তে গ্রিস এবং পূর্ব সীমান্তে ইরানকে নিয়ে এশিয়া ও ইউরোপ মহাদেশের সঙ্গমস্থলে আধুনিক তুরস্ক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠিত হয়৷
তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারা। তুরস্কের বৃহত্তম শহর ইস্তাম্বুল। তুরস্ক বর্তমানে একটি আধুনিক, গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র। এখানকার অধিকাংশ লোকের ধর্ম ইসলাম এবং মুখের ভাষা তুর্কি।

তৎকালীন অটোমান সাম্রাজ্যের উদ্ভব আনাতোলিয়া মালভূমি অঞ্চলে যা বর্তমান তুরস্কের অন্তর্ভুক্ত। ১২৯৯ সালে তুর্কি নেতা উসমান ধীরে ধীরে রাজ্য বিস্তার করে সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেন। সুলতান উসমানের নাম অনুসারে তার অনুসারীদের ইউরোপীয় উচ্চারণ ভঙ্গিতে অটোম্যান ডাকা হতো। সেই থেকে এই সাম্রাজ্য অটোম্যান হিসেবে পরিচিত। অটোম্যান সাম্রাজ্য তৎকালীন সমগ্র মধ্যপ্রাচ্য, উত্তর আফ্রিকা ও ইউরোপের হাঙ্গেরী, রোমানিয়া ও গ্রীস জুড়ে বিস্তৃত ছিল। অটোম্যান সাম্রাজ্যের স্থায়িত্বকাল ছিল ( ১২৯৯ – ১৯২২) সাল পর্যন্ত।

১২৯৯ সালে প্রতিষ্ঠার পর প্রথম বিশ্বযুদ্ধের শেষ পর্যন্ত টিকে ছিল ঐতিহাসিক ওসমানীয় সাম্রাজ্য। এই সাম্রাজ্য ৬০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে দক্ষিণ-পূর্ব ইউরোপ, পশ্চিম এশিয়া এবং উত্তর আফ্রিকার বেশির ভাগ এলাকা নিয়ে পৃথিবীর বুকে সগৌরবে টিকে ছিল। ইসলামের সব পবিত্র স্থাপনাসহ আধুনিক সৌদি আরবও এই সাম্রাজ্যের অধীনে ছিল। কিন্তু শেষের দিকে ওসমানীয় সাম্রাজ্যের শৌর্যবীর্য ধীরে ধীরে ক্ষয় পেতে থাকে এবং বিংশ শতাব্দীর শুরুতে জার্মানির পক্ষে প্রথম বিশ্বযুদ্ধে অংশগ্রহণ করে পরাজয়বরণ করার পর সাম্রাজ্যের চূড়ান্ত পতন হয়। এরপর স্বাধীনতা যুদ্ধের পর মোস্তফা কামাল আতার্তুকসহ তুরস্কের সামরিক কর্মকর্তারা ১৯২৩ সালে এক ঘোষণার মাধ্যমে তুরস্ক প্রজাতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হন। তুরস্কের রাজতন্ত্র বাতিল করেন মূলত কামাল আতার্তুক। আতার্তুক শব্দের অর্থ তুরস্কের পিতা। গ্রে উলফ নামেও পরিচিত কামাল আতার্তুক।

ইস্তাম্বুলের পূর্ব নাম বাইজেনটিয়াম ও কনস্টান্টিনোপল। ইস্তাম্বুল তুরস্কের রাজধানী ছিল ১৪৫৩ – ১৯২৩ সাল পর্যন্ত। তুরস্কের প্রথম মহিলা প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তানসু সিলার। বিখ্যাত সোফিয়া মসজিদ অবস্থিত ইস্তাম্বুলে। ইস্তাম্বুল বিশ্বের একমাত্র নগরী যা দুই মহাদেশে অবস্থিত।

আধুনিক তুরস্কের প্রথম প্রেসিডেন্ট কামাল আতার্তুক ১৯৩৮ সালে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। তিনি তুরস্ককে রাষ্ট্রীয়ভাবে পশ্চিমা রীতিনীতি ও মূল্যবোধের দিকে চালিত করেন এবং সেকুল্যারিজমকে দেশের অন্যতম মৌলিকভিত্তি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেন। এরপর কামাল আতাতুর্কের উত্তরসূরি ইসমত ইনোনুর হাত ধরে ১৯৪৬ সালে তুরস্কে বহুদলীয় গণতন্ত্রের সূচনা হয়। অবশ্য দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে তুরস্ক নিরপেক্ষ ছিল। এরপর ১৯৫২ সালে প্রতিবেশী গ্রিসের সাথে তুরস্ক ন্যাটো জোটে যোগ দেয়।

রেজেপ তায়্যিব এরদোয়ান
হলেন তুরস্কের ১২তম রাষ্ট্রপতি যিনি ২০১৪ সাল থেকে দায়িত্ব পালন করছেন। তার আগে ১১ বছর তিনি প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০০১ সালে তিনি একে পার্টি (জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলাপমেন্ট পার্টি) প্রতিষ্ঠা করেন। প্রতিষ্ঠার অল্প দিনের মধ্যেই দলটি জনসমর্থনের মাধ্যমে এক নম্বর অবস্থানে চলে আসে। দলটি ১৯৮৪ সালের পর প্রথমবার তুরস্কের ইতিহাসে একদলীয় দল হিসেবে এবং পরপর ৪ বার (২০০২, ২০০৭, ২০১১,২০১৪) সাংসদীয় নির্বাচনে বিজয়ী হয়। রাষ্ট্রপতি হবার পূর্ব পর্যন্ত তিনি ক্ষমতাসীন এই দলের সভাপতি ও প্রধান দলনেতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

১৯৫০-এর দশক থেকে রাজনীতিতে ধর্মের ভূমিকা তুরস্কের একটি বিতর্কিত ইস্যু। তুরস্কের সামরিক বাহিনী ১৯৬০, ১৯৭১, ১৯৮০ এবং ১৯৯৭ সালে মোট চারবার তুরস্কের রাজনীতিতে ধর্মনিরপেক্ষতার স্বার্থে হস্তক্ষেপ করেছে। সর্বশেষ ২০১৬ সালে এক সামরিক অভ্যুত্থান ঘটানোর চেষ্টা করা হয় তবে শেষ পর্যন্ত তুর্কি জনগনের ব্যাপক প্রতিরোধের মুখে তা ব্যার্থ হয়।

তুরস্ক এ পর্যন্ত প্রায় ৩৫ লাখ সিরিয়ান উদ্বাস্তুকে নিজের ভূখণ্ডে আশ্রয় দিয়েছে, যাদের বেশির ভাগই দেশটির দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে এবং ইস্তাম্বুলে আশ্রয় গ্রহণ করেছে। পাশাপাশি দেশটি ইরাক ও আফগানিস্তানের উদ্বাস্তুদেরও গ্রহণ করেছে। তা ছাড়া তুরস্ক কয়েক লাখ সিরিয় উদ্বাস্তুকে তুর্কি পাসপোর্টও প্রদান করেছে।

বহু শতাব্দী ধরে তুরস্ক ছিল মূলত কৃষিপ্রধান একটি দেশ। বর্তমানে কৃষিখামার তুরস্কের অর্থনীতির একটি বড় অংশ এবং দেশের শ্রমশক্তির ৩৪% এই কাজে নিয়োজিত। তবে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে তুরস্কে শিল্প ও সেবাখাতের ব্যাপক প্রসার ঘটেছে, বিশেষত অর্থসংস্থান, পরিবহন, এবং পেশাদারী ও সরকারি সেবায়। অন্যদিকে কৃষির ভূমিকা হ্রাস পেয়েছে। টেক্সটাইল ও বস্ত্র শিল্প দেশের রপ্তানির প্রধান উৎস।
অর্থনৈতিক রূপান্তরের সাথে সাথে নগরায়নের হারও অনেক বেড়েছে। বর্তমানে তুরস্কের ৭৫% জনগণ শহরে বাস করে। ১৯৫০ সালেও মাত্র ২১% শহরে বাস করত। জনসংখ্যার ৯০% তুরস্কের এশীয় অংশে বাস করে। বাকী ১০% ইউরোপীয় অংশে বাস করে।

রেজেপ তায়েপ এরদোয়ানের নেতৃত্বেই তুরস্ক বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। বর্তমান তুরস্ক উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে বিশ্বের কাছে প্রাধান্য পাচ্ছে। শুধু উন্নয়ন নয় ; এরদোয়ান জয় করেছেন তার দেশের সকল মানুষের হৃদয়




আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category