• শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০৯:০০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
কুকুরের প্রাণ বাঁচাতে মাঠে বাগমারা ফায়ার সার্ভিস টিম গোবিন্দগঞ্জের নবাগত উপজেলা নির্বাহী আফিসার আরিফ হোসেনের পরিচিতি ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত গোমস্তাপুরে বাঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যানের ইন্তেকাল  রাজশাহীতে বাবাকে গলাকেটে হত্যার করেছে ছেলে রাসিকের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কার্যক্রমে যোগ হলো আরো ১টি আধুনিক এসটিএস প্রথমবারের মতো পিএসসি কোর্স সম্পন্ন করলেন তিন পুলিশ কর্মকর্তা গোবিন্দগঞ্জে নবাগত উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরিফ হোসেনের পক্ষ থেকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শাহজাদপুরে দু’পক্ষের সংঘর্ষে যুবক নিহত,আহত অর্ধতশত বীরগঞ্জে মাদক ও বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে শিক্ষার্থীদের শপথ চেয়ারম্যান আলমগীর সরকারের উদ্যোগে এমপি এনামুল হকের করোনা মুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল



সংক্রমণ বাড়ছে, মাস্কে অনীহা!

Reporter Name / ৮১ Time View
Update : রবিবার, ৯ জানুয়ারী, ২০২২



সোহানুল হক পারভেজ : সভা-সমাবেশ, জনবহুল অনুষ্ঠান কিংবা হাট-বাজারে মানুষ চলাচল করছে মাস্ক ছাড়াই। গতকাল শুক্রবার ছুটির দিন সকালে নগরীর মাস্টারপাড়া কাঁচাবাজারে মানুষের উপচে পড়া ভিড় দেখা যায়। কিন্তু বেশির ভাগ মানুষেরই মুখে ছিল না মাস্ক।

অথচ কয়েক মাস আগে এ বাজারে আসা বেশির ভাগের মানুষের মুখে মাস্ক থাকত। প্রশাসনের পক্ষ থেকে তখন এ বিষয়টি তদারক করা হতো। স্বাস্থ্য সচেতনতায় এখন আর কোনো কার্যক্রম চোখে পড়ে না।

গত বছরের জুনে রাজশাহীতে নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে ৫০ শতাংশ মানুষের করোনা শনাক্ত হয়ে। ধীরে ধীরে সংক্রমণ কমে আসে। গত অক্টোবর, নভেম্বর, ডিসেম্বরেও রাজশাহীতে করোনার সংক্রমণের হার কোনো কোনো দিন শূন্যে নেমেছিল। এখন আবার কয়েক দিন ধরে সংক্রমণ বাড়ছে। সবশেষ বৃহস্পতিবার রাজশাহীর ১৭৫টি নমুনা পরীক্ষায় ২১ জনের করোনা শনাক্ত হয়। সংক্রমণের হার ১২ শতাংশ। কিন্তু স্বাস্থ্য সচেতনতা বাড়ছে না, বরং কমছে।

শুক্রবার সকালে মাস্টারপাড়া কাঁচাবাজারে সবজি বিক্রি করছিলেন খলিল মিয়া। মাস্ক না পড়ার কারণ জানতে চাইলে বলেন, ‘করুনা তো এখন আর নাই। আর ঠান্ডার দিনে মাপলার পরছি। মাস্ক পরা যায় না।’

বাজার করতে আসা ষাটোর্ধ্ব জাহিদুল ইসলামও মাস্ক পরেননি। তিনি বলেন, ‘আমি তো দুই ডোজ টিকা নিয়েছে। এখন মাস্ক না পরলেও চলে। আর কত মাস্ক পরব!’

বিভিন্ন সভা-সমাবেশ, সামাজিক অনুষ্ঠান কিংবা জনবহুল স্থানগুলোতেও এখন বেশির ভাগ মানুষকে মাস্ক পরতে দেখা যায় না। হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবহার কিংবা সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার অভ্যাসও এখন আর নেই। এসব অভ্যাস আবার ফিরিয়ে না আনলে সামনে বিপদ বাড়তে পারে বলে সতর্ক করছেন স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা।

রাজশাহীর সদ্য সাবেক সিভিল সার্জন ডা. কাইয়ুম তালুকদার বলেন, করোনার সংক্রমণ কমে আসার পরই মানুষের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে অসচেতনতা শুরু হয়। এখন আবার সচেতন না হলে সামনে বিপদ। তিনি জানান, স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করার বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে বৃহস্পতিবার আবার একটি নির্দেশনা এসেছে। সে অনুযায়ী জেলা প্রশাসন কাজ করবে।

রাজশাহীর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. হাবিবুল আহসান তালুকদার বলেন, বিভাগে ওমিক্রন শনাক্ত হয়নি। তবে করোনা শনাক্তের সংখ্যা একটু বেড়েছে। এখন পরীক্ষা কম হচ্ছে, তাতেই দেখা যাচ্ছে সংক্রমণের হারটা বাড়ছে। সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এখন আবার সতর্ক হতে হবে। আগের নিয়মকানুন, স্বাস্থ্যবিধি মানা পুনরায় শুরু করতে হবে। স্থানীয় একটি মিটিংয়েও এ বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। আবার স্বাস্থ্যবিধি মানার জন্য রাজশাহীতে কড়াকড়ি শুরু করা হবে।




আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category