পর্যটনের অপার সম্ভাবনাময় জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জ

প্রকাশিত: ১২:২৬ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৩০, ২০২০

চাঁপাইনবাবগঞ্জ বাংলাদেশের উত্তর অঞ্চলের একটি সীমান্তবর্তী জেলা। এ জেলার এক পাশে রাজশাহী ও অন্য পাশে নওগাঁ জেলা অবস্থিত। অপর দুই পাশে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত। এ জেলার যে বিস্তৃত পর্যটন সম্ভাবনা রয়েছে তা সঠিক ভাবে কাজে লাগাতে অতিরিক্তি জেলা প্রশাসক এ কে এম তাজকির-উজ-জামান বিভিন্ন ধরনের উদ্দ্যোগ গ্রহণ করেছেন। মুজিব শতবর্ষ উদযাপনের জন্য জেলা প্রশাসনের সামনে কোর্ট চত্ত্বরে নৌকা দিয়ে তৈরী করেছিলেন মুজিব মঞ্চ যা ছিল পর্যটকদের দৃষ্টি নন্দিত। তিনি উন্নত দেশের আদলে ফ্রেম তৈরী করে প্লাসটিকের বোতল সাজিয়ে বানানো হয়েছিল দুটো সেলফি স্ট্যান্ড,একটি কুঁড়ে ঘর আর একটি টাওয়ার। প্লাসটিকের তৈরী কুঁড়েঘর ও সেলফি স্ট্যান্ড দেখতে অনেক মানুষ সন্ধ্যার পর বেড়াতে আসতেন এবং সেলফি তুলে বন্ধুদের পোস্ট করে বোতলের তৈরী লাইটিং করা কুঁড়ে ঘরের ছবি শেয়ার করতেন। দর্শনার্থীরা বোতল দিয়ে কিভাবে ঘর বানানো যায় তা খুটিয়ে খুটিয়ে দেখতেন এবং আনন্দ উপভোগ করেছেন। জেলা প্রশাসনের দোতলায় পড়ে থাকা ছাদটাকে কাজে লাগিয়ে ফলজ,বনজ, ঔষুধি সব মিলিয়ে প্রায় ৯০ প্রজাতির গাছ লাগিয়ে ট্রেনিং মাঝে ওপেন সেশন,নাগরিকদের সময় কাটানো আর ছোট-খাট কোন অনুষ্ঠান যাতে সবুজের মাঝে করা যায় তার উদ্দ্যোগ গ্রহণ করেছেন। এ জেলার অপর সম্ভাবনাময় পর্যটন শিল্পকে কাজে লাগিয়ে দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার কল্পে অতিরিক্তি জেলা প্রশাসক এ কে এম তাজকির-উজ-জামান এজেলা কে পর্যটন শিল্প হিসেবে আকৃষ্ট করার লক্ষ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা কে “ম্যাংগো ট্যুরিজম” হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে। ম্যাংগো ট্যুরিজম বলতে চাঁপাইনবাবগঞ্জ আমের জেলা তা সকলে জানে। এ জেলার লোকজন জানান যে, এ জেলায় প্রায় ২৩০ প্রজাতির আম রয়েছে। এই আমের নামগুলোকে একত্রিত করে নতুনভাবে আমের এ্যালবাম তৈরি করার চেষ্টা করে যাচ্ছেন অতিরিক্তি জেলা প্রশাসক এ কে এম তাজকির-উজ-জামান । বর্তমানে এ জেলার ক্ষিরসাপাত আম জিআই পণ্য। যা এই জেলাকে এবং আমের রাজধানী হিসেবে নামকরণকে যর্থাথতা দিয়েছে। প্রায় ৩১ হাজার হেক্টর জমিতে ৩ লক্ষ মেট্রিক টন আম উৎপাদন হয়। আম পাঁকার সময় আম পরিবহন, আম শ্রমিক, আম কুরিয়ার সার্ভিস করা, আম কিনতে আসা পর্যটকদের থাকা-খাওয়া মিলিয়ে ইত্যাদি চাঁপাইনবাবগঞ্জে আমকেন্দ্রিক প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকার একটা বাজার রয়েছে। এ কে এম তাজকির-উজ-জামান জানান এই জেলা পুরার্কীতির নিদর্শনে অনন্য অন্যতম সমৃদ্ধ একটি জেলা। অসংখ্য ইতিহাস সমৃদ্ধ স্থাপনা ও প্রতœতাত্ত্বিক নিদর্শন রয়েছে; যেগুলো দেখে পর্যটকগণ আকৃষ্ট হবেন। এ জেলা বরেন্দ্র অঞ্চল হিসেবে পরিচিত। বরেন্দ্র অঞ্চলের বৈশিষ্ট্যমন্ডিত উঁচু নিচু ভূ-প্রকৃতির প্রাকৃতিক সৌন্দর্য পর্যটকদের আকৃষ্ট করবে। এ জেলার সমতলে বসবাসকারী ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীর সংখ্যা প্রায় ৭০ হাজার। তাদের জীবন যাত্রার মান অন্যান্য অঞ্চলে বসবাসকারীদের আকৃষ্ট করতে বাধ্য। এই জেলায় তিনটি স্বাদু পানির নদীর অববাহিকা রয়েছে। যা এই জেলার এক অনন্য বৈশিষ্ট্য। এই জেলার উল্লেখ্যযোগ্য দর্শনীয় স্থান গুলো হচ্ছে ছোট সোনামসজিদ, শাহনেয়ামতুল্লাহ এর মাজার, বীরশ্রেষ্ঠ মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীরের সমাধি, দারাসবাড়ি মসজিদ ইত্যাদি। এগুলো শুধু দর্শনীয় স্থানই নয় এর রয়েছে সমৃদ্ধ ইতিহাস। এ জেলার রয়েছে অনেক ঐতিহ্য। এ অঞ্চলের নকশী কাঁথা অন্যতম প্রসিদ্ধ। এ জেলার নকশী কাঁথা অন্য অঞ্চলের থেকে আলাদা। এখানে ঘুরতে এসে চাইলে নকশী কাঁথা কেনার সুযোগ উপভোগ করতে পারেন। এছাড়াও রয়েছে কাঁসা পিতলের ঐতিহ্য। মাসকলাইয়ের রুটি কিংবা আদি চমচম এর স্বাদ আকৃষ্ট করবে পর্যটকদের। এছাড়াও আরো রয়েছে সিল্ক। এই সিল্ক মূলত রাজশাহী সিল্ক নামে পরিচিতি হলেও চাঁপাইনবাবগঞ্জে তার আদি নিবাস; উৎপাদিত হয় এখানে। পর্যটনের কোন স্থানের কথা বললে মনে হয় সেন্টমার্টিন, কক্সবাজার, সুন্দরবন এর কথা। কিন্তু এছাড়াও চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার যে সকল পুরার্কীতি রয়েছে সেগুলোকে আকর্ষণীয় উপায়ে মানুষের নিকট উপস্থাপন করে দেশের মধ্যে এবং বিদেশী পর্যটকদের আকৃষ্ট করে পর্যটনকে স্থানীয় অর্থনৈতিক উন্নয়নের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন অতিরিক্তি জেলা প্রশাসক এ কে এম তাজকির-উজ-জামান। জেলার এই সম্ভাবনাকে কাজে লাগানোর উদ্দেশ্যে এ জেলার সকল তথ্যগুলোকে একত্রিত করে একটি পর্যটন ব্রশিয়ার তৈরি করেছেন তিনি । যার নাম দেয়া হয়েছে “চলো বেড়াই” বিদেশের মতো এই চলো বেড়াই ব্রশিয়ারটি বাস ষ্টেশন, রেল ষ্টেশনে সরবরাহ করার কথা উল্লেখ্য করেন তিনি। যা যে কেউ একাই পর্যটন এলাকা সহজেই খুঁজে পেতে পারবে। চলো বেড়াই ব্রশিয়ারটি মূলত আট পৃষ্ঠার নির্দেশিকা। এর এক পাশে রয়েছে উপজেলা ভিত্তিক পর্যটন কেন্দ্রের তথ্যসমূহ। কোথায়, কিভাবে যাওয়া হবে, কার সাথে যোগাযোগ করবে ইত্যাদির বর্ণনা। পরবর্তী পৃষ্ঠার মধ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জের অন্যান্য ঐতিহ্যবাহী সুভ্যেনির রয়েছে তার বর্ণনা আছে। এতিহ্যবাহী খাবার, আবাসন, বাস, ট্রেন, বিমানের যোগাযোগ ব্যবস্থা ইত্যাদি বিস্তারিত ভাবে তুলে ধরা হয়েছে। কে এম তাজকির-উজ-জামান বিষয়টিকে আরো সহজলভ্যভাবে তুলে ধরার জন্য গুগল প্লে­ স্টোরে “চাঁপাই প্লেসেস” নাম দিয়ে একটি এ্যাপ তৈরি করা হয়েছে। এটি যেকোন এনড্রয়েড মোবাইল থেকে গুগল স্টোরে গিয়ে চাঁপাই প্লেসেস নামে সার্চ দিলে পাওয়া যাবে। মোবাইল এ্যাপস ফিচারের মাধ্যমে একজন পর্যটক গুগল ম্যাপের মাধ্যমে সেই কাঙ্খিত জায়গায় যেতে পারবে। এই এ্যাপে জেলার দর্শনীয় স্থান, ঐতিহ্য, বিভিন্ন ব্যক্তিবর্গের নাম ঠিকানা ইত্যাদি যুক্ত করা হয়েছে যা তার যাতায়াতে সহযোগিতা নিতে পারবেন।এর পাশাপাশি তিনি থাকার জায়গা বা কেনাকাটার জন্য সরাসরি এর মাধ্যমে ফোন করতে পারবেন। ছবি তুলে ফেসবুকে শেয়ার করতে পারবে। তিনি তার বন্ধু বান্ধব বা আতœীয় স্বজনকে সেই জায়গা সম্পর্কে জানাতে পারবে। এর পাশাপাশি এই এ্যাপস এর মাধ্যমে কার্যকর সকল তথ্য ও সহযোগিতা পেতে পারেন। এই এ্যাপস ও ব্রশিয়ারটি চাঁপাইনবাবগঞ্জের ম্যাংগো ট্যুরিজমের প্রধান হাতিয়ার। পর্যটক কে জেলা সম্পর্কে জানার জন্য আগ্রহী ও আকৃষ্ট করতে ভিজিটিং কার্ডে চাঁপাইনবাবগঞ্জের পর্যটন স্থানের ছবি হিসেবে ছোট সোনামসজিদ ও আল্পনা গ্রামের ছবি এবং অপর পৃষ্ঠায় দেশের আমের বৃহৎতম আম বাজার কানসাটের ছবি দেখতে পাওয়া যাবে। যিনি এই ভিজিটিং কার্ডটি পাবেন তিনি এই জেলা সম্পর্কে আকৃষ্ট হন এবং এ জেলা সম্পর্কে জানতে আগ্রহী হবেন। জেলা প্রশাসন প্রকাশ করেছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার পর্যটন গাইড “দেখা হয় নাই চক্ষু মেলিয়া”। যাতে এ জেলার পর্যটন সম্পর্কে বিশদ বর্ণনা দেওয়া আছে। যা একজন পর্যটক এ গাইডটি পড়ে অনেক ধারণা পেতে পারেন। এটি বাংলাদেশের প্রথম জেলাভিত্তিক পর্যটন গাইড। পর্যটককে আকর্ষণীয় করে তোলার জন্য চাঁপাইনবাবগঞ্জকে পরিচিতি করার জন্য জনবহুল এলাকাতে পর্যটন সম্বলিত তথ্য সমৃদ্ধ র্বোড ও ব্রশিয়ার স্থাপনের মাধ্যমে আকৃষ্ট করার কথা উল্লেখ করেন তিনি। বাংলাদেশে পর্যটন শিল্পের অপার সম্ভাবনা বিরাজমান। কিন্তু এ বিশাল সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও জেলা ভিত্তিক সঠিক পরিকল্পনার অভাবে আমরা পর্যটন শিল্পে পিছিয়ে আছি। এ শিল্পের উন্নয়নের জন্য প্রয়োজন সমন্বিত পরিকল্পনা। পর্যটন শিল্পের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়ে সকলকে নিয়ে একসঙ্গে কাজ করে যেতে হবে। দেশীয় পর্যটন বিকাশের পাশাপাশি বিদেশি পর্যটক আকর্ষণে প্রচার-প্রচারণার ওপর গুরুত্বারোপ করতে হবে। পাশাপাশি এ শিল্পের উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে দক্ষ মানবসম্পদ তৈরির দিকে বিশেষ নজর দিতে হবে। সুশিল সমাজ ও ভ্রমণ পিপাসু ব্যাক্তিরা বলেন, পর্যটন শিল্পের বিকাশে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক এ কে এম তাজকির-উজ-জামান যে ধরনের কর্মপরিকল্পনা গ্রহন করেছেন তা সঠিক ভাবে বাস্তবায়ন করা গেলে চাঁপাইনবাবগঞ্জ অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নে পর্যটন শিল্প অন্যতম ভূমিকা পালন করতে পারবে।

Print Friendly, PDF & Email