• বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০৩:৫১ অপরাহ্ন
শিরোনাম
আগুনমুখা নদীতে অবৈধ বালু উত্তোলন ড্রেজারের পাঁচ শ্রমিককে তিন মাসের জেল, একজনকে জরিমানা রাজসম্মান-ধন সব ছেড়ে ভালোবাসার মানুষকে বিয়ে রংপুর জেলা প্রশাসনের সহায়তায় বিক্রি হওয়া শিশুকে ফেরত পেল পরিবার নাচোলে বিদ্যুৎ এর ৪০০/১৩২ কেভির সাবস্টেশন নির্মানের ফলে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি, প্রতিকার চেয়ে ইউএনও বরাবার আবেদন গোমস্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নার্সের বিরুদ্ধে অশালীন আচরণের অভিযোগ নাচোলে আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত পটুয়াখালীতে ভোক্তা অধিকারের অভিযান : জরিমানা ৮১ হাজার টাকা। নোয়াখালীতে অবৈধ সিএনজি-রিকশা স্ট্যান্ড উচ্ছেদ করায় ২ আনসার সদস্যকে ছুরিকাঘাত করেছে চাঁদাবাজরা গোমস্তাপুরে চেয়ারম্যান পদে ২ জন ও সদস্য পদে ১৫ জনের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার  গোমস্তাপুর বিভিন্ন সম্প্রদায়ের সম্প্রীতি সভা অনুষ্ঠিত



সাপাহারে সর্বমহলে প্রশংসিত এসিল্যান্ড সোহরাব হোসেন

Reporter Name / ২৬ Time View
Update : সোমবার, ২৪ মে, ২০২১



বৈশ্বিক দুর্যোগ মরণঘাতি করোনা ভাইরাস সংক্রমণ বিস্তার প্রতিরোধে ও অফিসের সমুদয় কার্যক্রমে নওগাঁর সাপাহার উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সোহরাব হোসেন দায়িত্বশীল কর্ম তৎপরতায় উপজেলার সর্বমহলে প্রশংসিত হয়ে উঠেছেন। দীর্ঘ এক বছরের অধিক সময় এ ভাইরাস সংক্রমণ রোধ কল্পে ও সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে জনসচেতনতা সৃষ্টি, প্রবাস ফেরত ব্যক্তিদের হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করণ, দ্রব্যমূল্যের কৃত্রিম সংকট ও ঊর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণে উপজেলা সদরসহ প্রত্যন্ত এলাকায় ইউএনও কল্যাণ চৌধুরীর নির্দেশনা ও পরবর্তী নির্বাহি অফিসার আব্দুল্লাহ-আল-মামুন নয়ন এর সহযোগী হিসেবে অভিযান অব্যাহত রেখে নজির স্থাপন করেছেন সহকারী কমিশনার ভূমি সোহরাব হোসেন ।
উল্লেখ্য যে সাপাহারে নবাগত উপজেলা নির্বাহি অফিসার হিসেবে যোগদানের পর হতে আব্দুল্লাহ আল মামুন সর্বমহলে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নিরলস ভাবে ছুটে চলেছে সাধারণ মানুষ আশা করছেন অচিরেই এই নির্বাহী অফিসার মানুষের মন জয় সহ সাপাহারের উন্নয়নে অংশীদারিত্ব হয়ে উঠবেন। তাকে সর্বদিক দিয়ে সহযোগিতা করছেন এই মহতী ভূমি কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন।

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশে করোনা পরিস্থিতি শুরু থেকেই উপজেলা নির্বাহী অফিসার কল্যাণ চৌধুরীর সদা প্রচেষ্টায় ও নির্দেশনায় উপজেলার ৬ টি ইউনিয়নের সকল হাট-বাজার, গ্রামীণ জনগুরুত্বপূর্ণ স্থান ও বিভিন্ন স্থানে ছুটে চলেছেন এবং অভিযান পরিচালনা করেছেন সোহরাব হোসেন।

এ ছাড়া বিভিন্ন তথ্যের ভিত্তিতে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ এবং হোম কোয়ারেন্টাইন আইন অমান্যকারী বিদেশ ফেরত ব্যক্তিদের জরিমানা এবং সতর্কতা মূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। ২০২০ সালের ১লা মার্চ থেকে উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে দ্রব্যমূল্যের বৃদ্ধিকারি দোকানদার, কোচিং সেন্টারের মালিক ও বিদেশ ফেরত ব্যক্তিদের হোম কোয়ারেন্টাইন অমান্যকারীর বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার মাধ্যমে বিভিন্ন সাজা প্রদান করেন উপজেলা ভূমি কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন।এ সময় তিনি বিদেশ ফেরত ব্যক্তিদের যত্রতত্র ঘোরাফেরা না করে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশনা দেন এবং নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রীর মূল্য বৃদ্ধি না করার কঠোর নিদের্শনা দেন।

২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসে ইউএনও কল্যাণ চৌধুরীর সাথে থেকে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত উপজেলার ৬ টি ইউনিয়নের সবকটিতেই মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন এবং উপজেলায় করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে জনসচেতনামূলক প্রচারণা চালান।
একাধিক জনপ্রতিনিধিরা ও সাপাহার উপজেলার সাধারণ জনগণ সাংবাদিকদের কে জানান , ভূমি কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন সাপাহারে যোগদানের পর থেকেই জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে সমন্বয় করে রাত-দিন সাপাহার উপজেলা বাসীর জন্য নিবেদিতপ্রাণ হয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। এমন নিষ্ঠাবান-কর্মঠ ও মানবিক গুণাবলী সম্পন্ন ভূমি কর্মকর্তা অতীতে খুব কম পেয়েছি। করোনাভাইরাস মোকাবেলায় তিনি সাপাহারে যে ভূমিকা পালন করে যাচ্ছেন তা নজিরবিহীন। তাঁর কর্মকাণ্ডে মনে হচ্ছে তিনি কেবল চাকরিজীবী নন, সাপাহার উপজেলার একজন সচেতন অভিভাবকও। করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সরকার শুরু থেকেই সতর্ক অবস্থানে ছিলো।
বর্তমান নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ-আল-মামুন এর সমস্ত উন্নয়নমূলক ও ভালো কাজের এবং অফিসিয়াল দায়-দায়িত্ব নির্দেশ মেনে পালন করবেন, পার্শ্বে থাকে তিনি সর্বদিক দিয়ে সহযোগিতা করবেন বলে সকলে মনে করেন।

সাপাহার উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি কর্মকর্তা সংবাদকর্মীকে জানান সাপাহার যোগদানের পর থেকে প্রজাতন্ত্রের একজন সেবক হিসেবে অর্পিত দায়িত্ব পালন করছি মাত্র। করোনা পরিস্থিতিতে ও সরকারি নির্দেশনা মতে কাজ করে যাচ্ছি। সারাদেশের ইউএনও-এসিল্যান্ড সহ সরকারি কর্মকর্তারা যেভাবে কাজ করছে আমিও সে ভাবে কাজ করছি। চলমান করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় অনেক জনপ্রতিনিধি, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারি, পুলিশ বিভাগের কর্মকর্তা ও সাংবাদিকসহ অনেকে সার্বিক সহাযোগিতা দিয়ে যাচ্ছেন। এজন্য তিনি সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

তিনি আরো বলেন উপজেলার ৬ টি ইউনিয়নের প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে ভ্যানচালক, রিক্সাচালক, শ্রমিক, খেটে খাওয়া মানুষ, ভিক্ষুক, অতি ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সহ সকল শ্রেণীর মানুষকে এ সংকটময় এ মুহূর্তে তাদের সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাফেরা করোনা সংক্রমণ রোধে মুখে মাক্স পড়ার অনুরোধ জানান।




আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category