ভিয়েতনামের বারোমাসী আমের জাত- চাঁপাইনবাবগঞ্জে বাণিজ্যিক ভাবে চাষ হচ্ছে গোল্ডেন ম্যাংগো

প্রকাশিত: ১০:০৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৪, ২০২০

জৈষ্ঠ প্রতিবেদক আমিনুল ইসলাম তন্ময়, চাঁপাইনবাবগঞ্জ :
বাংলাদেশর উত্তর আঞ্চলের সীমান্তবর্তী জেলা আমের রাজধানী চাঁপাইনবাবগঞ্জে বাণিজ্যিক ভাবে চাষ হচ্ছে ভিয়েতনামের নতুন জাত বারোমাসি আম গোল্ডেন ম্যাংগো। শিবগঞ্জ উপজেলার ধাইনগর ইউনিয়নের নাককাটিতলা-বলুটুঙ্গী গ্রামে এনামুল হক নামে এক নতুন কৃষি উদ্যোক্তা ভিয়েতনাম থেকে সায়ন নিয়ে এসে বারোমাসি গোল্ডেন ম্যাংগো চাষ কারছেন।


এনামুল হক জানান, তিনি গত তিন বছর পুর্বে প্রবাস থেকে ফিরে আসার সময় বারোমাসি জাতের আম গোলোডন ম্যাঙ্গোর কিছু ডাল বা সায়ন নিয়ে আসেন। পরে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার ধায়নগর ইউনিয়নের নাককাটিতলা-বালুটুঙ্গীত গ্রামে নিজের ছয় বিঘা জমিতে কলমের মাধমে চারা করে ৬০টি গাছ দিয়ে শুরু করেন গোল্ডেন ম্যাংগো নামের আম গাছ চাষ। বর্তমানে তার বাগানে বড় ছোট মিলিয়ে ৬’শ গাছ রয়েছে।


সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, এনামুল হক স্বপনে’র বারোমাসি আম গোল্ডেন ম্যাংগো’র বাগানে একই আম গাছে প্রসষ্ফুটিত মুকুল, গুটি আম এবং পরিপক্ক রঙ্গীন আম ঝুলছে। নতুন জাতের আমের স্বাদ, রং, ঘ্রাণ কেমন, বর্তমান বাজারে এর মুল্য কত? এমন প্রতিক্রিয়ায় গোল্ডেন ম্যাংগো চাষী কৃষি উদ্যোক্তা কৃষি এনামুল হক জানান, ভিয়েতনামের এ জাতের আম সহনীয় মিষ্টি। যার ওজন পরিপক্ক অবস্থায় এক কেজিতে তিনটি এবং সর্বউচ্চ ৭শো গ্রাম ওজন হ য়ে থাকে। আম পাকা অবস্থায় হলুদাভ আকার ধারণ করে। যা মানুষে দৃষ্টি কাড়তে সক্ষম। বছরে তিনবার ফলদায়ক ভিয়েতনামের আম গোল্ডেন ম্যাঙ্গো। অসময়ে উৎপাদিত হওয়ায় আমের মুল্য ছয় থেকে সাত’শ টাকা প্রতি কেজি। ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা মন দরে তিনি বাজারজাত করেছেন বলে দাবী করেন এনামুল হক।

তিনি জানান, তিন বছর পুর্বে ভিয়েতনামে এই আম গাছ দেখে তারও ইচ্ছে জাগে গোল্ডেন ম্যাঙ্গো বাগান করার। প্রবাস থেকে ফিওে তিনি অনুধাবন করেন দেশে বেকার সমিস্যা এড়াতে উদ্যোগতার বিকল্প কিছু নায়। আমার বাগানে নিয়মিত ৬থেকে ৭জন মানুষ কাজ করেন, তাই আমার বাগানে ৬বিঘার বাগানে ৬ থেকে ৭ জনের কর্মসংস্থান করতে পারাই আনান্দবোধ করছি।

গোল্ডেন ম্যাংগো বাগানের পাশে বসবাসরত খুরশেদ আলমের সাথে কথা হলে তিনি জানান, প্রায় এই বাগানে আসি। আমি ভাল-মন্দ বা বাগান পরিচর্যা বিষয়ে জ্ঞান ধারন করবার চেষ্টা করি। খুরশেদ আলম আরও বলেন এটি একটি লাভজনক ব্যবসা। আমি আগামীতে ১০ বিঘা জমিতে গোল্ডেন ম্যাংগো চাষ করবার পরিকল্পনা করছি।
গোল্ডেন ম্যাংগো বাগানের শাজাহান আলী একজন কর্মচারীর সাথে কথা হলে তিনি বর্তমানে কাজকর্ম কম। কিন্তুু এনামুল নতুন প্রজাতির এই আম চাষ করায় আমি তার বাগানে কাজ করতে পারছি। আমরা বাগানের পরিচর্যা করি। শাজাহান আলি মত আরও ৬/৭ কাজ করছেন, যারা নিয়মিত বাগান পরিচর্যা করেন।

নতুন কৃষি উদ্যোগতা এনামুল হকের শুধু বাগান নয়, হক নার্সারি নামে একটা নার্সারি ও রয়েছে। হক নার্সারি ও গোল্ডেন ম্যাংগো বাগানের ম্যানেজার সাব্বির আহমেদ জানান, গোল্ডেন ম্যাংগো একটি সুস্বাদু আম এতে সঠিক পরিচর্যা করলে অধিক ফলন পাওয়া যায়। গাছের সম্পর্কে তিনি জানান, এবার গোল্ডেন ম্যাংগো গাছে চাহিদা ব্যাপক। প্রতিটি গাছ ১৩০ টাকা থেকে রকম বা সাইজ ভেদে ৫’শ শত টাকা করে বিক্রি করছি।

এ বিষয়ে জেলা কৃষি-সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক নজরুল ইসলাম জানান, ভিয়েতনাম গোল্ডেন ম্যাংগো একটি বিদেশি জাতের আম। আমের রাজধানী খ্যাত চাঁপাইনবাবগঞ্জে অন্যান্য জাতের আমের মতই চাষাবাদ হচ্ছে। এ আমের রং পর্যাপ্ত এবং এটি সুমিষ্ট আম। তবে এই আম চাষ করার জন্য সরকারি ছাড় প্রদানকারী সংস্থা থেকে এখনও ছাড় দেওয়া হয়নি। কিন্তু কৃষক আর্থিক লাভবান হওয়ায় এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জের মাটি চাষাবাদেও উপযোগী হওয়ায় অনেকেই চাষের দিকে ঝুঁকছেন। ভিয়েতনাম গোল্ডেন ম্যাংগো গাছ কী পরিবেশের উপর কোন প্রভাব পড়বে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, এটা গবেষণার বিষয়তাই এখন বলা সম্ভব নয়।